Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Post Type Selectors

প্রকল্প বাস্তবায়নে এ, বি, সি ক্যাটাগরি বলতে কী বোঝানো হচ্ছে ?

Facebook
Twitter
LinkedIn

২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচীভুক্ত প্রকল্পগুলোকে এ/বি/সি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে। বড় বড় প্রকল্পগুলোকে এই তিন ভাগে ভাগ করে অগ্রাধিকার ঠিক করতে হবে। এ বিষয়ে গত ৩ জুলাই ২০২২ তারিখে অর্থ বিভাগ হতে একটি পরিপত্র জারী হয়েছে।

কোন প্রকল্প গুরুত্বপূর্ণ এবং দ্রুত বাস্তবায়ন প্রয়োজন, সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নেবে।

পরিপত্রে চলতি অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে বরাদ্দ পাওয়া ১,৪৮৭টি প্রকল্পকে অগ্রাধিকারভিত্তিতে ‘এ’, ‘বি’ ও ‘সি’ ক্যাটাগরিতে ভাগ করে ‘এ’ ক্যাটাগরির প্রকল্প বাস্তবায়নে শতভাগ বরাদ্দ অক্ষুণ্ণ রেখে ‘বি’ ক্যাটাগরির প্রকল্পগুলোর বরাদ্দের সরকারি অংশের ২৫ শতাংশ কর্তন করা হয়েছে। আর ‘সি’ ক্যাটাগরির প্রকল্পগুলো চলতি অর্থবছর কোনো অর্থ ব্যয় করতে পারবে না।

তিনি জানান, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলো অব্যাহত থাকবে বলে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। বি ক্যাটাগরির বা দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলোয় মোট বরাদ্দের ৭৫ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। আর কম গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলোয় আপাতত খরচ করা স্থগিত থাকবে।

‘এ’ ক্যাটাগরি প্রকল্প

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলো অব্যাহত থাকবে বলে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। সরকারের মেগা প্রকল্পগুলোর পাশাপাশি বিদেশি সহায়তার প্রকল্পগুলোকে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে রেখে তা বাস্তবায়নে জোর দেওয়া হয়েছে। এছাড়া চলতি অর্থবছরে যেসব প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্পন্ন হবে এবং কৃষি, খাদ্য নিরাপত্তা এবং বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত-সংশ্লিষ্ট প্রকল্পগুলো ‘এ’ ক্যাটাগরিতে রাখা হয়েছে অর্থাৎ এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে বাজেটে যে বরাদ্দ রাখা হয়েছে, তার শতভাগ ব্যয় করা যাবে। এ ধরনের প্রকল্পের সংখ্যা ৭ শতাধিক বলে জানিয়েছেন অর্থ বিভাগের কর্মকর্তারা। এ ক্যাটাগরির মধ্যে রয়েছে অগ্রাধিকার বা ‘ফাস্ট ট্র্যাক’ প্রকল্পগুলো, যার মধ্যে আছে, খাদ্য, কৃষি, জ্বালানি, উন্নয়ন বা বড় অবকাঠামো নির্মাণ প্রকল্প। এর অনেকগুলো প্রকল্প শেষ হওয়ার কথা রয়েছে সামনের বছর জুন মাসের মধ্যে।

এসব প্রকল্পের বেশ কয়েকটি বৈদেশিক সহায়তায় হচ্ছে। পদ্মা সেতুতে রেললাইন স্থাপন, কর্ণফুলীর নদীর নীচের টানেলসহ সব মিলিয়ে এ ক্যাটাগরিতে প্রায় সাতশ’ প্রকল্প রয়েছে।

অর্থ বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, ‘এ’ ক্যাটাগরির প্রকল্প বাস্তবায়নে কোন মন্ত্রণালয় সাফল্য দেখাতে পারলে এবং এক্ষেত্রে মন্ত্রণালয়গুলোর বাস্তবায়ন সক্ষমতা ভালো হলে ‘সি’ ক্যাটাগরির প্রকল্পে বরাদ্দের অর্থও ‘এ’ ক্যাটাগরির প্রকল্পে ব্যয় করতে পারবে।

‘বি’ ক্যাটাগরি প্রকল্প

যেসব প্রকল্প বাস্তবায়ন হতে আরও কমপক্ষে দুই বছর বা তার বেশি সময় লাগবে, যেসব প্রকল্পের প্রায় ৫০ শতাংশ এর মধ্যেই ব্যয় করা হয়ে গেছে এবং এই মুহূর্তে বাস্তবায়নের গতি একটু স্লো হলেও অর্থনীতিতে কোনো বিরূপ প্রভাব পড়বে না, সেসব প্রকল্প বি ক্যাটাগরিতে ধরা হয়েছে। এসব প্রকল্পকে মধ্যম মানের গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছে সরকার।

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, ৫০০ শতাধিক প্রকল্প ‘বি’ ক্যাটাগরিতে স্থান পেয়েছে। এসব প্রকল্পে সরকারি তহবিল থেকে মোট যে পরিমাণ বরাদ্দ রাখা হয়েছে, তার ৭৫ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। তবে এসব প্রকল্পে বৈদেশিক অর্থায়ন থাকলে তার শতভাগ ব্যয় করা যাবে।

এরকম প্রকল্পের মধ্যে মুদ্রণ, কম্পিউটার ক্রয়, কয়েকটি রেললাইন ও সড়ক নির্মাণ প্রকল্প, প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ ও সংস্কার, জাতীয় সড়ক বর্ধিতকরণ ও সংস্কার ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

‘বি’ ক্যাটাগরির জন্য নতুন নির্দেশনাঃ পরিচালন ও উন্নয়ন ব্যয়ে নতুন নির্দেশনা জারী

‘সি’ ক্যাটাগরি প্রকল্প

সম্ভাব্যতা সমীক্ষা করা কিংবা প্রশিক্ষণ-সংশ্লিষ্ট প্রকল্পগুলোকে ‘সি’ ক্যাটাগরিতে স্থান দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। চলতি অর্থবছরের বাজেটে এসব প্রকল্পে বরাদ্দ থাকা সত্ত্বেও কোনো অর্থ ব্যয় করা যাবে না। এ ধরনের প্রকল্পের সংখ্যা প্রায় ১৫০ হতে পারে বলে জানা গেছে। অন্যদিকে যেসব প্রকল্পের বাস্তবায়ন শুরুর দিকে রয়েছে, এখনো সম্ভাব্যতা যাচাই পর্যায়ে রয়েছে অথবা কিছুদিন পরে বাস্তবায়ন করলেও জনসেবায়, উৎপাদনে বা অর্থনীতিতে কোন প্রভাব পড়বে না, সেগুলোকে ধরা হয়েছে সি ক্যাটাগরিতে। এই খাতে অফিস ভবন নির্মাণ বা বর্ধিতকরণ, প্রদর্শনী, প্রশিক্ষণ ও সক্ষমতা বৃদ্ধির প্রকল্প, আবাসিক ভবন নির্মাণ বা সংস্কার, সৌন্দর্য বৃদ্ধিকরণ ইত্যাদি প্রকল্প রয়েছে। এরকম প্রায় দেড়শ প্রকল্প রয়েছে এই বছরের এডিপিতে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীনে বরাদ্দপ্রাপ্ত প্রকল্প রয়েছে ১১টি। এর মধ্যে ৬টি ‘এ’ ক্যাটাগরিতে এবং ৫টি ‘বি’ ক্যাটাগরিতে স্থান পেয়েছে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দপ্রাপ্ত ২৫টি প্রকল্পের মধ্যে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র-সংশ্লিষ্ট তিনটি প্রকল্পসহ মোট ৮টি প্রকল্প ‘এ’ ক্যাটাগরিতে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার স্থাপনসহ ১৬টি প্রকল্প ‘বি’ ক্যাটাগরিতে এবং বিসিএসআইআর ঢাকা ও চট্টগ্রাম কেন্দ্রে নিরাপদ ও স্বাস্থ্যকর শুঁটকি মাছ প্রক্রিয়াকরণ এবং ইনডোর ফার্মিং গবেষণা-সংক্রান্ত সুবিধাদি স্থাপন প্রকল্পটি ‘সি’ ক্যাটাগরিতে স্থান পেয়েছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই লেখকের অন্যান্য লেখা

ঠিকাদারী ফোরাম

ই-জিপি দরপত্রে দাখিল অডিট রিপোর্ট অনলাইনেই যাচাই করা যাবে

খুব অচিরেই ই-জিপি দরপত্রে ভুয়া অডিট প্রতিবেদন দাখিলের দিন শেষ হচ্ছে। অডিট প্রতিবেদন যাচাই সহজ করার জন্য বাংলাদেশ পাবলিক প্রকিউরমেন্ট

Read More »
question, puzzle, funny-6701943.jpg
ক্রয়কারি ফোরাম

প্রকল্পের DPP তে ভৌত এবং প্রাইস কনটিনজেন্সি খাতে কত বরাদ্দ রাখবেন ?

প্রকল্প ব্যবস্থাপনায় আমরা প্রায়শঃই কন্টিনজেন্সি (Contingency) শব্দটা শুনে থাকি। প্রকল্প ব্যবস্থাপনায় কন্টিনজেন্সি (Contingency) অনেক গূরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়। প্রকল্পের DPP (Development

Read More »
FAQ

প্রাইস কনটিনজেন্সি (Price Contingency) কি ?

প্রকল্প ব্যবস্থাপনায় আমরা প্রায়শঃই কন্টিনজেন্সি (Contingency) শব্দটা শুনে থাকি। প্রকল্প ব্যবস্থাপনায় কন্টিনজেন্সি (Contingency) অনেক গূরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়। প্রকল্পের DPP (Development

Read More »
FAQ

ফিজিক্যাল কন্টিনজেন্সি (Physical Contingency) কি ?

প্রকল্প ব্যবস্থাপনায় আমরা প্রায়শঃই কন্টিনজেন্সি (Contingency) শব্দটা শুনে থাকি। প্রকল্প ব্যবস্থাপনায় কন্টিনজেন্সি (Contingency) অনেক গূরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়। প্রকল্পের DPP (Development

Read More »
Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Post Type Selectors
গ্রাহক হোন

শুধুমাত্র Registered ব্যবহারকারিগন-ই সব ফিচার দেখতে ও পড়তে পারবেন। এক বছরের জন্য Registration করা যাবে। Registration করতে এখানে ক্লিক করুন

ফ্রী রেজিস্ট্রেশন

“প্রকিউরমেন্ট বিডি news”, “সমসাময়িক”, “সূ-চর্চা”, “প্রশিক্ষণ” অথবা “ঠিকাদারী ফোরাম” ইত্যাদি বিষয়ে কমপক্ষে ২টি নিজস্ব Post প্রেরণ করে এক বছরের জন্য Free রেজিষ্ট্রেশন করুণ। Post পাঠানোর জন্য “যোগাযোগ” পাতা ব্যবহার করুণ।

সূচীঃ PPR-08

সর্বশেষ

Scroll to Top